ডিজিটাল মার্কেটিং এর কিছু জরুরি টিপস

ডিজিটাল মার্কেটিং করার জন্য প্রয়োজনিয় বিষয়

 

Search engine optimization(seo)

Search engine optimization  বা SEO হচ্ছে আপনার ওয়েবসাইট  গুগল কিংবা অন্যান্ন সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে ফলাফলগুলি

পর্যালোচনা করে থাকে। বর্তমান প্রতিযোগিতাপূর্ণ মারকেটে এস ই ও এর ভূমিকা অনেক কার্যকরী । এসইও এর মাধ্যমনের

আপনার ব্যাবসার কোন পন্য কে খুব তারাতারি প্রমোট করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে  আপনার কোন পন্য খুব তারাতারি

পরিচিত লাভ করবে এবং আপনার পন্য বিক্রির হার অনেক বেড়ে যাবে।

সতর্কতাঃ

-সার্চ ইঞ্জিনের নিয়ম কানুন মেনে চলুন ।

-কারও কোন কন্টেন্ট কপি করবেন না

মনে রাখবেন, এটি হচ্ছে আপনার ব্যাবসা কে উন্নতি করার অভিনব কৌশল

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

 

আপনার ব্যাবসার কোন পন্য মার্কেটিং করার এর বিকল্প  এখনও নাই। এই মাধ্যম টি দিয়ে আপনি একটি এক্টিভ কমিনিটি

গড়তে পারবেন। এমনভাবে একটি কমিউনটি তৈরি করুন যেখানে সকল মেম্বার এ্যাক্টিভ থাকবে। আপনি ফেসবুক

কমিউনিটি গড়তে পারবেন ভিবিন্ন গ্রুপ কিংবা পেজ তৈরি করতে পারেন। ঠিক একইভাবে আপনি অন্য  সোসাল মিডিয়াতে

করুন। আপনার টার্গেটকৃত ক্রেতাদের সাথে সোশ্যাল মিডিয়াগুলোতে বিভিন্ন আলোচনাতে অংশগ্রহন করতে পারেন। যদি

আপনার টারগেট ক্লায়েন্ট দের ইমেইল পাঠানোর প্রয়জন হয়, আপনি তখন সোশাল মিডিয়া থেকে ইমেইল কালেক্ট করে

পাঠাতে পারেন । আপনার নিজের ওয়েবসাইটে কিংবা কোন ব্লগে পোস্ট দেয়ার ক্ষেত্রে সোশ্যাল মিডিয়ার লাইক বাটন যুক্ত

করুন। সকল সোশ্যাল মিডিয়াতে সক্রিয়ভাবে নিয়মিত অংশগ্রহণের জন্য ম্যানেজমেন্টটুলস (HootSuite, TweetDeck)

ব্যবহার করুন যা আপনার সময়কে সর্বোচ্চ ব্যবহারের মাধ্যমে ভাল ফলাফল বের করতে সাহায্য করবে। নিয়মিত পোস্ট

দিতে হবে। সেটা একটা রুটিন অনুযায়ী করলে ভাল হয়ে। যেমন, ৩ দিন পর, ১ সপ্তাহ পর। তাহলে নিয়মিত ভিজিটর

আসবে নতুন কিছু পাবার আশায়।

মোবাইল মার্কেটিং

 

এসএমএস(SMS) মার্কেটিং, এমএমএস(MMS) মার্কেটিং, ব্লুটুথ মার্কেটিং, ইনফ্রারেড মার্কেটিং এর মাধ্যমে মোবাইল

মার্কেটিং করা হয়। আর এগুলোর মধ্যে “SMS FOR MOBILE” মার্কেটিং পদ্ধতিটি খুবই গুরুতুপূর্ণ। আপনি ভার্চুয়াল জগৎ

এর, ডিজিটাল যুগের মানুষ। আপনার ফেসবুক, টুইটারে অনেক ফলোয়ার থাকতে পারে। তাদেরকে আপনি মেসেজ অথবা

টুইট করতে পারেন আপনার keyword গুলো। হয়তো তারাও SMS এর মাধ্যমে আপনার প্রোডাক্টের সাবস্ক্রাইবার হতে

পারে। যারা আপনার প্রডাক্টের নিয়মিত সাবস্ক্রাইবার হয়েছে তাদেরকে আপনি আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কিত বিবরণের মেসেজ

পাঠাতে পারেন। মেসেজ হবে সংক্ষিপ্ত, to-the–point এ এবং ১৬০ ওয়ার্ডের বেশী নয়। মেসেজ হবে ফ্রেণ্ডলি যাতে

সাবস্ক্রাইবার এমন মনে না করে যে আপনি আপনার কোম্পানীর প্রোডাক্ট কেনার জন্য তাকে প্ররোচিত করছেন। এই

মার্কেটিং পদ্ধতিটি খুবই ফ্লেক্সিবল এবং এটি টাকা তৈরীর টুল হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে।

Share This Post

Post Comment